Thursday, September 27, 2012

লেখালেখির অন্য ঠিকানা

এই পোস্ট বহু আগেই দেয়া উচিৎ ছিল!! আমি সরব এ লিখছিলাম অনেক দিন ধরেই। নিজের একান্ত স্থানে আগামীতে পোস্ট করার ইচ্ছে আছে।

সরব হোন স্বপ্ন নিয়ে

Monday, May 30, 2011

আকাশের ক্ষুদ্রতার গল্প।


এটি টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজেলার অরুনখোলা গ্রামের গল্প।
কিছু দিনমজুর, রিক্সাচালক এবং রাবার বাগানের কর্মীরা কীভাবে আকাশকে লজ্জা দিল সেই গল্প!

Wednesday, February 9, 2011

৫ বছরের অবশ শিশু মারুফ এবং অবশ আমার বাংলাদেশ


মারুফ ৫ বছরের শিশু, সারাক্ষণ অস্থির করে রাখত বৃদ্ধ নানা নানীকে। এখন অবশ অবস্থায় পড়ে আছে! খেলার সময় একটি নির্মাণাধীন ভবন থেকে তার মাথায় ইট পড়ে। সেখানে তার মস্তিষ্ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। সে এখন, না নাড়াতে পারে শরীর, না বলতে পারে কথা! 

Thursday, December 23, 2010

না বদলানোর শপথ!

কাল বুয়েট যাচ্ছিলাম। নীলক্ষেত থেকে বুয়েট হেঁটেই যাই। কারণ অযথা বেশি টাকা দিবো ক্যান?! প্লাস হাঁটতে সেই রকম ভালো লাগে আমার!
(নিজের ব্যাপারে বলি বাপ্পি দুনিয়ায় একটা কাজই ভালো পারে, সেটা হচ্ছে হাঁটাহাঁটি!)
যাবার পথের রাস্তাটায় ভাত বিক্রি করে কিছু মহিলা। রিকশাওয়ালা/ভ্যানওয়ালারা সেখানে খায়। খিচুড়িও থাকে দেখেছি। একদিন অন্তত খেয়ে দেখার ইচ্ছে আছে! (বাঙালির একদিনের পান্তার মত!) তো কাল যাবার সময় দেখলাম কয়েকজন মিলে একসাথে ভাত খাচ্ছে।

Saturday, November 27, 2010

শ্রাবণীপু, আমরা আছি। তোমার পাশে, ধ্রুব ভাইয়ার পাশে!

প্রিয় শ্রাবণী আপু,

তোমাকে তুমি করেই বলছি! যাঁদের ভালো লাগে এঁদেরকে আপনি করে বলাটা অনেক কষ্টকর! তুমি অবশ্য আমাকে চেনো না। আমার ছোট্ট একটা পরিচয় দিয়ে নেই। আমি বুয়েটের শেষ বর্ষের ছাত্র, সিএসই ডিপার্টমেন্ট এ পড়ছি। (ধ্রুব ভাইয়া ও তো সিএসই' থেকে পড়েছেন)। সারাক্ষণ কাছের মানুষদের জ্বালিয়ে বেড়াই! যে যত কাছের, সে ততটা ভোগে!! আমি কেন লিখছি এই চিঠি? একটু ধৈর্য্য ধরো তো! আমার মত হয়ো না!

Friday, November 19, 2010

জ্যোতির্ময় ইভটিজার! (জ্যোতি-৫)

আমি আর জ্যোতি বসে ড্রইংরুমে বসে আম্মুর করা পাস্তা খাচ্ছিলাম।
জ্যোতি বলল "তোকে আমি কেন বিয়ে করব জানিস? আন্টির এই পাস্তার জন্য! আন্টির কিছু গুণ তো তুই পাবি! বিয়ের পর তুই আমাকে রান্না করে পাস্তা খাওয়াবি!"
আপনি যদি আগে থেকে কিছু না জেনে থাকেন তবে ভাবছেন জ্যোতি একটা ছেলে আর আমি মেয়ে?! ভুল!  জ্যোতি আমার রূপবতী অহংকারী স্বঘোষিত গার্লফ্রেন্ড! ওর কথার ধরনই এমন!